বিশেষ প্রতিবেদক(পীরগঞ্জ, ঠাকুরগাঁও): পীরগঞ্জ রেল স্টেশন কম্পিউটারাইজড করা প্রায় লক্ষাধিক জনগনের প্রাণের দাবী হয়ে উঠেছে। টিকিটের কালোবাজারী, টিকিট সংকট ও টিকিট নিয়ে নানা অনিয়মের কারণে প্রতিনিয়ত ঢাকাগামী যাত্রীদের ভোগান্তির মধ্যে পরতে হচ্ছে যা ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাল ব্যবস্থায় সত্যিই হাস্যকর।
ঠাকুরগাও জেলার মধ্যে পীরগঞ্জ রেল স্টেশন ঢাকাগামী যাত্রীদের অন্যতম প্রধান স্টেশন। কারন, প্রতিদিন চার জোড়া ট্রেন নিয়মিত স্টপিজ দেয় এখানে তাছাড়া পীরগঞ্জ, রানীশৈংকল, হরিপুর, নেকমরদ, বালিয়াডাংগী, সেতাবগঞ্জ এমনকি বীরগঞ্জের প্রায় লক্ষাধিক মানুষের একমাত্র ভরসা এই স্টেশনটি। রেলওয়ের আয়ের অন্যতম নিয়ামক এই স্টেশনটি অত্র জেলার মধ্যে সর্বোচ্চ ভূমিকা পালন করে। অথচ যাত্রীসেবার মানের দিক দিয়ে অত্র স্টেশনের কার্যক্রম নাজুক হয়ে পড়েছে। যার ফলে যাত্রীদের প্রায় সময় নানা ভোগান্তি ও উৎকন্ঠায় ভ্রমন করতে হয়। যা সত্যিই মেনে নেওয়ার মতো না।
নানা অভিযোগের মধ্যে অন্যতম অভিযোগ পীরগঞ্জ স্টেশনে প্রচুর যাত্রীর চাপ থাকা সত্ত্বেও টিকিটের বরাদ্দ কম, যা আবার বরাদ্দ তাও আবার যাত্রীরা ঠিক মতো পায় না টিকেট কালোবাজারির জন্য। পীরগঞ্জ সহ আশপাশের সকল যাত্রীকে পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও অথবা দিনাজপুরের টিকিটে ট্রেন ভ্রমন করতে হয়। যা সত্যিই দুঃখজনক। স্টেশনে এখনো টিকিট দেয়া হয় হাতে লেখা টিকেট। অনলাইন টিকিটের যা বরাদ্দ তা একটা চক্র কিনে নিয়ে কালোবাজারী করে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে।

তাই পুরো স্টেশনের কার্যক্রমকে কম্পিউটারাইজড করতে পারলে যাত্রীদর ভোগান্তি ও টিকেট কালোবাজারী বন্ধ হবে বলে সবাই বিশ্বাস করে। তাছাড়া গুরত্বপূর্ণ স্টেশন হিসেবে চিহ্নিত করে বিশেষ সুবিধা প্রদান করার জোড় দাবী জানিয়েছে যাত্রীরা।

টিকেট ভোগান্তি, স্টেশনের সকল কার্যক্রম ডিজিটালাইজড করা, স্টেশনের সেবার মান উন্নয়নে রেলমন্ত্রীর দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এসব যাত্রীরা। ভোগান্তি ও অনিয়ম নিরসন এবং উন্নত ও ডিজিটাল সেবার মাধ্যমে যাত্রীদের সেবার মানন্নোয়ন হল স্টেশনটি মডেল স্টেশন হিসেবে খ্যাতি অর্জনের সমূহ সম্ভাবনা রাখে। তাই যথাযথ কর্তৃপক্ষের উচিত বিষয়টি গুরত্বসহকারে নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহন করা।

শেয়ার করুন